বোমায় মারাত্মক আহত পশ্চিমবঙ্গের মন্ত্রী জাকির হোসেন

111

স্টেশনে ট্রেন ধরতে এসে বোমার আঘাতে গুরুতর জখম হলেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের শ্রম দফতরের প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন। বুধবার রাত সাড়ে ৮টা নাগাদ মুর্শিদাবাদের নিমতিতা স্টেশনের ২ নম্বর প্ল্যাটফর্মে এই ঘটনা ঘটে। জেলা পুলিশ জানিয়েছে, মন্ত্রীর ওপর বোমা হামলা হয়েছে। ওই ঘটনায় মন্ত্রী জাকির ছাড়াও জখম হয়েছেন আরো ১৩ জন। জখম মন্ত্রীকে প্রথমে জঙ্গিপুর সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে সেখান থেকে তাকে কলকাতায় স্থানান্তরিত করার পরামর্শ দেন চিকিৎসকেরা। রাতেই তাকে কলকাতায় নিয়ে আসার উদ্যোগ নেয়া হয়।

চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, মন্ত্রীর হাতে-পায়ে গুরুতর আঘাত লেগেছে। তবে তার অবস্থা স্থিতিশীল। জাকিরের ওপর এই হামলার তীব্র নিন্দা করেছেন জেলা তৃণমূলের সভাপতি আবু তাহের। প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি তথা বহরমপুরের এমপি অধীর চৌধুরীও ঘটনার নিন্দা করেছেন। মুর্শিদাবাদের এই ঘটনাকে পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিতে ‘কালো দিন’ বলে টুইট করেছেন রাজ্যের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। রাজনীতিতে হিংসার কোনো জায়গা নেই বলেও তিনি মন্তব্য করেন। জাকিরের দ্রুত আরোগ্য কামনা করেছেন ফিরহাদ।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, কলকাতায় আসবেন বলে বুধবার রাতে রওনা দিয়েছিলেন জাকির। নিমতিতা থেকে তার তিস্তা-তোর্সা এক্সপ্রেস ধরার কথা ছিল। গাড়ি থেকে নেমে হেঁটে তিনি ২ নম্বর প্ল্যাটফর্মে যান। সেই সময় জাকিরকে ঘিরে ছিলেন দলীয় কর্মী, সমর্থক এবং অনুগামীরা। অনেকেই সেই সময় মোবাইলে ভিডিও রেকর্ডিং করছিলেন। কেউ কেউ নেটমাধ্যমে সরাসরি ছিলেন। সেই ভিডিওয় ধরা পড়েছে, রাজ্যের মন্ত্রীর উপর বোমা হামলার ভয়ানক দৃশ্য। ভিডিওয় দেখা গেছে, গাড়ি থেকে নেমে কর্মী-সমর্থক পরিবৃত হয়ে হেঁটে যাচ্ছেন জাকির। সকলে মন্ত্রীর জয়ধ্বনীর পাশাপাশি দলীয় স্লোগান দিচ্ছেন। কিছুটা হেঁটে যাওয়ার পর আচমকাই ভিডিওজুড়ে প্রবল বিস্ফোরণ। ঘটনার আকস্মিকতা কাটতেই দেখা যায়, এ দিক ও দিক ছড়িয়ে ছিটিয়ে সকলে। রক্তাক্ত চতুর্দিক।

গুরুতর জখম জাকির এবং বাকিদের গাড়িতে করে নিয়ে যাওয়া হয় জঙ্গিপুর সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে। পরে মন্ত্রীকে কলকাতায় স্থানান্তরিত করা হয়। কলকাতায় আনার সময় মন্ত্রীর অ্যাম্বুল্যান্সে চিকিৎসার জন্য অন্য ৩ জন স্বাস্থ্যকর্মীকে পাঠানো হয়েছে। সঙ্গে রয়েছেন চিকিৎসক এবং নার্সও। বাকি আহতদের মধ্যে কয়েক জনের পরিস্থিতি গুরুতর হওয়ায় তাদের মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়।

তৃণমূলের অভিযোগ, বিধানসভা নির্বাচনের আগে রাজ্যের মন্ত্রীর ওপর পূর্বপরিকল্পিত ভাবেই এই হামলা চালানো হয়েছে। ঘটনায় জেলা তো বটেই গোটা রাজ্য জুড়ে ব্যাপক উত্তেজনা তৈরি হয়েছে। ঘটনার তদন্তে নেমেছে পুলিশ। জঙ্গিপুর পুলিশ জেলার সুপার ওয়াই রঘুবংশী বলেন, ‘‘মন্ত্রী জাকির হোসেনের ওপর হামলা চালানো হয়েছে। আমরা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছি। ঘটনাস্থলে বম্ব স্কোয়াডের দল যাচ্ছে। ঘটনার তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।’’ যদিও এই ঘটনায় এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করেনি পুলিশ।

এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন জেলা তৃণমূলের সভাপতি আবু তাহের। তিনি বলেন, ‘‘মন্ত্রীর ওপর এই হামলা পরিকল্পিত।’’ তবে হামলাকারী কারা সে সম্পর্কে এখনো নিশ্চিত নন আবু। গোটা ঘটনা তদন্ত করে দেখতে তিনি প্রশাসনের কাছে অনুরোধ জানিয়েছেন।

এই ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার এবং শাস্তির দাবি তুলেছেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘‘জাকির তৃণমূলে এক ব্যতিক্রমী ব্যক্তিত্ব। পরিশ্রম এবং বুদ্ধির জোরে একজন প্রতিষ্ঠিত শিল্পপতি এবং মানুষের বন্ধু।’’

অন্য দিকে, নিমতিতা স্টেশনে বোমা বিস্ফোরণের জেরে কয়েকটি ট্রেনের যাত্রাপথ বদল করা হয়েছে। কামরূপ এক্সপ্রেস, রাধিকাপুর এক্সপ্রেস এবং হাটেবাজারে এক্সপ্রেসকে রামপুরহাট দিয়ে ঘুরপথে চালানো হচ্ছে বলে রেলের তরফে জানানো হয়েছে।
সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা