নিজে টিকা নেওয়া প্রস’ঙ্গে যা বললেন প্র’ধানমন্ত্রী

110

দেশে শুরু হয়েছে ক’রোনার টিকাদান কর্মসূচি। দেশে প্রথম ভ্যাকসিন নিয়েছেন কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্স রুনু ভেরোনিকা কস্তা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ বুধবার (২৭ জানুয়ারি) বিকেল সাড়ে ৩টায় রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে টিকা কার্যক্রম উদ্বোধ’ন করার পর এই টিকা নেন তিনি।

এসময় যারা টিকা নিতে এসেছেন তাদের হাসিমুখে অভ’য় দেন প্রধানমন্ত্রী। নিজেও টিকা নেওয়ার আ’গ্রহ প্রকাশ করেন। তার আগে সকলের জন্য টিকা দেওয়ার কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। নিজে টিকা নেওয়ার প্রস’ঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আগে নিলে বলবে, আগে নিলো কাউকে দিলো না; সবাইকে দিয়ে নেই, তারপর নেবো।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের মানুষের মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করা আমাদের কর্তব্য। যখন অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা টিকা আসলো, আমরা বললাম যত দ্রু’ত এই টিকা নেওয়া যায়। আমি ১ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রেখেছিলাম ভ্যাকসিন কেনার জন্য।

‘দেশ উন্নত হওয়ায় মানুষ ভোটে আগ্রহ হারিয়েছে’
ভোটদানের প্রতি নাগরিকদের অনীহা রয়েছে। হয়তো দেশ উন্নত হ‌ওয়ার সাথে সাথে মানুষও ভোটদানে আগ্ৰহ হারিয়েছে। বুধবার (২৭ জানুয়ারি) চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন স’ম্প’র্কে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে ইসি সচিব মো. আলমগীর এ কথা বলেন।

সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন স’ম্প’র্কে সচিব বলেন, ভালো নির্বাচন হয়েছে। স্বাভাবিকভাবে নির্বাচন হয়েছে। তবে দুটি কেন্দ্রে বিশৃঙ্খলা হয়েছে, সে দুটি স্থগিত রয়েছে। অ’ভিযোগ পেলে নির্বাচন কমিশন ব্যবস্থা নেবে। তবে আগের তুলনায় এই নির্বাচনে কম স’হিং’সতা হয়েছে। ভোটার উপস্থিতি‌ও কম।

ইসি সচিব বলেন, কোনো কোনো কেন্দ্র ৫০ থেকে ৮০ ভাগ ভোট পড়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে কোনো কেন্দ্রে আবার ৫ ভাগ ভোটও পড়তে পারে।বিএনপির অ’ভিযোগ স’ম্প’র্কে তিনি বলেন, বিএনপির অ’ভিযোগের সুনির্দিষ্ট কোনো প্রমাণ নেই। উপযু’ক্ত প্রমাণসহ অ’ভিযোগ করা হলে বিষয়টা ভেবে দেখা হবে, ভিডিও থাকলে ভালো হয়।

এদিকে খু’ন, দফায় দফায় সং’ঘ’র্ষ, পাল্টাপাল্টি ধাওয়া, ভোট গ্রহণ স্থগিত, এজেন্টদের কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়ার মধ্য দিয়ে শেষ হয় চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ভোট গ্রহণ। সকাল আটটা থেকে ভোট গ্রহণ শুরু হয়ে বিকেল চারটা পর্যন্ত চলে, বর্তমানে ভোট গণনা চলছে।

কেন্দ্র নিয়ন্ত্রণের জেরে কাউন্সিলর প্রার্থীদের সম’র্থকদের মধ্যে একের পর এক সং’ঘ’র্ষের খবর আসতে থাকে। বিএনপি অ’ভিযোগ করে, আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা ভোট’কেন্দ্র থেকে ধানের শীষের এজেন্টদের বের করে দিয়েছে। অন্যদিকে নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে বিএনপি পরিক’ল্পি’তভাবে হা’ম’লা করছে বলে সংবাদ সম্মেলনে অ’ভিযোগ করেছে আওয়ামী লীগ।

নির্বাচনে আওয়ামী লীগ এবং বিএনপির দুই প্রার্থী ছাড়াও এবার চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচনে আরও পাঁচ প্রার্থী মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।অন্যদিকে, ৩৯টি সাধারণ কাউন্সিলর ও ১৪টি সংরক্ষিত না’রী কাউন্সিলর পদে প্রার্থী হয়েছেন ২৩৭ জন। এবারের ৭৩৫টি কেন্দ্রের মধ্যে ৪১৭টি কেন্দ্র গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে নির্বাচন কমিশন।

২০২০ সালের ২৯ মা’র্চ চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনে ষষ্ঠ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও ক’রো’নার কারণে নির্বাচনের আট দিন আগে তা স্থগিত করা হয়। এরপর পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় ভোটের দিন ঠিক করে কমিশন।