শাহরুখকে কিনে নিলেন প্রীতি জিনতা!

73

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) দুই বড় ফ্র্যাঞ্জাইজি কলকাতা নাইট রাইডার্স ও পাঞ্জাব কিংসের মধ্যে সাকিবকে নিয়ে লড়াইটা ভালোই জমে উঠেছিল।

গতকাল বৃহস্পতিবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) চেন্নাইয়ে বিশ্বসেরা এই বাংলাদেশি অলরাউন্ডারকে নিয়ে রীতিমত টানাটানা করেছে শাহরুখ খানের কলকাতা ও প্রীতি জিনতার পাঞ্জাব। তবে শেষ পর্যন্ত পুরোনো ঠিকানাতেই ফিরেছেন সাকিব। তাকে ৩ কোটি ২০ লাখ রুপি দিয়ে কিনে নিয়েছে কেকেআর।

সাকিবের ভিত্তিমূল্য ছিল ২ কোটি রুপি। কলকাতা তাকে প্রথমে ডাকে। এরপরই পাঞ্জাব লড়াইয়ে যোগ দেয়। তবে কলকাতা সাকিবের জন্য ৩ কোটি ২০ লাখ হাঁকানোর পর আর এগোয়নি পাঞ্জাব। গতকাল কেকেআরের মালিক হলেও শাহরুখ খান নিলামে ছিলেন না। তার পক্ষে ছেলে আরিয়ান খান ও মালিকপক্ষের অপরজন জুহি চাওলার পক্ষে ছিলেন তার মেয়ে জাহনাবি মেহতা। যদিও শাহরুখ-জুহি থাকলে নিলামের ফাঁকে প্রীতি জিনতার সঙ্গে আড্ডাটাও হতো জম্পেশ। কিংবা নিলাম অনুষ্ঠানটাও আরও জমজমাট হতো। শেষ পযন্ত তা হয়।

তবে সাকিবকে শাহরুখ খানের দল লুফে নিলেও পাটকেলটি ভালোই মেরেছেন প্রীতি জিনতা। সাকিবকে দলে না পেলেও তিনি ৫ কোটি ২৫ লাখ রুপি দিয়ে খোদ শাহরুখ খানকেই কিনে নিয়েছেন। এ নিয়ে নিলামের পর থেকেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে হাস্যরসের জন্ম দিয়েছে। ‘বীরজারা’ ছবিটির প্রতি ইঙ্গিত করে অনেকেই বলেছেন- অবশেষে ‘জারা’ পেল তার ‘বীর’কে।

আসলে ব্যাপারটি একটু অন্যরকম। যে শাহরুখ খানকে প্রীতি জিনতা কিনে নিয়েছেন তিনি বলিউড অভিনেতা কিং খান নন। নাম হুবহু হলেও এই শাহরুখ একজন ভারতীয় উঠতি ক্রিকেটার।

ভারতের জাতীয় দলের জার্সিতে এখনও অভিষেক হয়নি ২৫ বছর বয়সী এই ডানহাতি অফস্পিনারের। জন্ম তার চেন্নাইয়ে। ২২ গজে তার মূল পরিচয় ডানহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে।

ক্রিকেটার শাহরুখকে নিলামে কিনে নেয়ার পরই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ‘দিল সে’, ‘কাভি আলভিদা না কেহনা’ ছবিগুলোতে শাহরুখ-প্রীতির রসায়নও ভক্তদের স্মৃতিচারণে উঠে আসে।
ক্রিকেটার শাহরুখের বাবা-মা শখ করে বলিউড অভিনেতা শাহরুখ খানের সঙ্গে মিলিয়ে ছেলের নাম রেখেছিলেন। ২০১৯ সালে একবার ভারতীয় সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়াকে ক্রিকেটার শাহরুখ বলেছিলেন, ‘উনার (অভিনেতা শাহরুখ খান) সঙ্গে দেখা হলে আমার মুখে হাসি ফুটবে। আমি নিশ্চিত প্রথম দেখায় অনেক নার্ভাস লাগবে। তবে আমি নিজে আগে তার সঙ্গে কথা বলবো না।’

তখন সেটির ব্যাখ্যাও দিয়েছিলেন ক্রিকেটার শাহরুখ। বলেছিলেন- ‘তিনি “আমার নাম শাহরুখ খান” বলা বলা পর্যন্ত আমি অপেক্ষা করবো। উনি গর্ব করে নিজের নাম উচ্চারণ করার পর আমি বুক ফুলিয়ে বলবো- “আমার নামও শাহরুখ খান”। এরপর উনার অভিব্যক্তি কী হয়, সেটা দেখার আমার খুব ইচ্ছে। যদিও আমি জানি, ততদিনে তিনি আমাকে চিনে ফেলবেন।’